Thursday , 29 July 2021
Home / খবর / নুসরতের সানগ্লাসে এ কার প্রতিচ্ছবি?

নুসরতের সানগ্লাসে এ কার প্রতিচ্ছবি?


কলকাতা, ২৮ জুন – বিয়ে, বিচ্ছেদ, গর্ভধারণ, বাচ্চার পিতৃপরিচয় আর বিতর্ক। নুসরত জাহানের (Nusrat Jahan) জীবনের সঙ্গে জুড়ে রয়েছে এই কয়টি জিনিস। যবে থেকে খবরে এসেছে সে প্রেগনেন্ট তখন থেকে বিতর্ক ছাড়ছে না। তাঁর এখন এমন অবস্থা যে ছবি পোস্ট করেও বিতর্কে জড়াতে হচ্ছে।

সম্প্রতি, নিজের কয়টি ছবি পোস্ট করেছেন নুসরত। সাদা টপ আর সানগ্লাস পরে দেখা যাচ্ছে নুসরতকে। সাদা টি শার্ট পরে বেশ সুন্দরই লাগছে তাঁকে। চোখে ওভার সাইজ সানগ্লাস। আর ছবির ক্যাপশনে লেখেন, রৌদ্রজ্জ্বলে আশ্চর্য লুকে।

নুরসতের পোস্ট করা এই ছবি দেখেই শুরু হয়েছে সমালোচনা। বিতর্ক দানা বেঁধেছে তাঁকে ঘিরে। এই ছবির ফোটোগ্রাফার কে তা নিয়ে শুরু হয়েছে গুঞ্জন।

নুসরতের পোস্ট করা ছবিতে নুসরতের সানগ্লাসে উঠেছে একটি পুরুষের প্রতিচ্ছবি। যিনি ছবি তুলে দিয়েছেন, তাঁর ছায়া দেখা যাচ্ছে। আর এটি নেটিজেনদের চোখ এড়ায়নি। একজন এই ছবিতে কমেন্ট করেন, ‘আমি কি সানগ্লাসের কাঁচে যশকে দেখতে পাচ্ছি?’

আপাতত এর উত্তরে নুসরত কিছু বলেননি। প্রসঙ্গত, বহুদিন ধরে খবরের শিরোনামে নুসরত। তিনি যে গর্ভবতী এই খবর প্রকাশ্যে আসার পর থেকে শুধু টলিউড ইন্ডাস্ট্রি যে চমক পেয়েছে এমন নয়, চমক পেয়েছে তাঁর স্বামীও। এই খবর জানার পর নিখিল জৈন বলেন, গত ছয় মাস ধরে তাঁরা আলাদা থাকেন। তাদের কোনও যোগাযোগ নেই। ফলে, বাচ্চা কার তা তিনি জানেন না।

এরপরই আরও এক বিস্ফোরক মন্তব্য শোনা যায় নুসরতের মুখে। তিনি দাবি করেন, তাঁদের বিয়ে বৈধ নয়। ফলে, ডিভোর্সের কোনও প্রশ্নই নেই। এর পরই নুসরত ও যশের সম্পর্ক নিয়ে গুঞ্জন শোনা যায়। তাদের এক সঙ্গে বহুবার দেখা গিয়েছে ঘুরতে যেতে। সময় কাটাতে। এমনকী, একে অন্যকে নিয়ে কমেন্ট করেন সোশ্যাল মিডিয়ায়। সকলেই বলেই তাঁরা প্রেম করছেন। অনেকেই বলেন যশ-নুসরত গোপনে বিয়ে করেছেন। তবে, এই সব প্রশ্নে আজ পর্যন্ত কোনও উত্তর দেয়নি তারা।

লাল-নীল-গেরুয়া…! ‘রঙ’ ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা ‘খাচ্ছে’? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম ‘সংবাদ’! ‘ব্রেকিং’ আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে ‘রঙ’ লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে ‘ফেক’ তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই ‘ফ্রি’ নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

এন এইচ, ২৮ জুন

2021-06-28